Recent Posts

Pages: [1] 2 3 ... 10
1
Career Grooming / Does University GPA Matter When Looking for a Job?
« Last post by A.Wadud on July 10, 2017, 05:00:46 PM »
                                                                       Is CGPA Important for the Job?

You’ve been studying all week for tomorrow’s exam. While scoring below an A on one college test isn’t the end of the world, it may affect your grade point average — which you’ve been working tirelessly to keep up since middle school. You know GPA matters because it’s enabled you to get here.

So, how important is it to your job prospects?

The role your GPA plays may vary according to how well you’ve done in college and the industries that interest you.

A High GPA (3.5–4.0+)
Congratulations! A high grade point average is no small accomplishment. It indicates hard work, dedication, and commitment to your academic success — all qualities that matter to many employers.

You can compete.
Sectors such as finance, tech, accounting, and engineering still use GPA as a key metric in their initial evaluations of candidates. Some even ask for SAT scores! These domains are highly competitive, and your GPA is one of the principal indicators of your competence.

Industries such as these also consider GPA because they are among the most popular fields among recent graduates — and GPAs provide an easy shorthand for Human Resources departments to whittle down large candidate pools.

According to Amir, a recent Rutgers Business School graduate who secured a coveted consulting position at PricewaterhouseCoopers: “I think GPAs are very important. It’s an initial indicator on how valuable a candidate is, especially when one is applying for the job online.”

Still, you’re not alone.
According to a report by the Teachers College Record, an A average is more common than you think. When considering the evolution of grading across a wide spectrum of schools over the past 70 years, current data indicate that A’s represent 43 percent of all letter grades on average, an increase of 28 percentage points since 1960 and 12 percentage points since 1988. Grade inflation means that, while your GPA will make you competitive, it won’t necessarily land you a job.

GPA isn’t everything.
It’s also important to remember that employers are looking for skills, qualities, and experience that a GPA doesn’t always capture. To put it another way, your GPA may get you in the door, but it’s not going to close the deal. There are other factors — your creativity, interpersonal skills, critical thinking, and communication ability — that are likely to be far more relevant than the grades you received in college coursework.

Leadership, special projects, related work, or internship experience — these are what will help you maintain your lead.

Looking for more information? Check out our expert advice about career preparation.

An Acceptable GPA (3.0–3.4)
While a GPA in this range isn’t outstanding, it does demonstrate competence. And there are other ways for you to stand out!

Focus on leadership.
Jerome Joseph, Dean of Students at Uncommon Schools and former Teach for America Associate of District and Community Partnerships, has also emphasized the importance of leadership.

“I came into teaching as a TFA corps member, so my GPA was a fairly significant consideration when I was offered a spot. I had a 3.2 major in biology, which I think was solid but nothing that blew people away. I had a lot of intangibles that I think set me apart, such as serving as Vice President of the Student Government Association at Howard University.”

The National Association of Colleges and Employees (NACE) agrees, citing leadership roles as more influential than GPA when evaluating a college graduate’s candidacy.

Build relevant experience.
GPAs can serve as predictors of success, but there is no more important measure to employers than actual experience. Having relevant work experience is critical to post-college success. As reported in the Daily Free Press in 2013, the Chronicle of Higher Education and American Public Media’s Marketplace found that relevant work experience is more important than college grades to prospective employers, noting:

“Employers place more weight on experience, particularly internships and employment during school vs. academic credentials including GPA and college major when evaluating a recent graduate for employment.”

Expand your network.
Remember that a GPA in this mid-range doesn’t automatically disqualify you from working at a large company or in a competitive industry; it just means you need to network. “I would say a high GPA definitely helps, but the connections you make are way more important,” says Jabe, a junior at Drexel University and a marketing intern at Fox Rothschild.

Networking is not a practice to be fearful of, but is rather an important skill to master for career success — and networking is becoming easier because the job hunt is increasingly social. According to a recent LinkedIn report on 2015 global recruiting staffing trends, social professional networks provide the best quality and quantity of placements.

NACE also confirms this trend in its 2014 Recruiting Benchmarks Survey, reporting that nearly half of employers who took part in the study used social media to find and reach out to prospective hires.

A Lower GPA (3.0 or below)
The general guideline is that you should leave a GPA lower than 3.0 off your resume (unless it is expressly requested by a prospective employer). That said, there may be extenuating circumstances to consider. Just because your GPA is lower than other candidates’, you’re not out of the running. Before you give in to the urge to tell a little white lie — which can come back to bite you if a hiring manager checks your transcript — consider a few scenarios.

What’s the reason?
Remember that you’re human, and employers are too. It can be difficult to balance academics with emergency situations: Did you deploy for military service? Did you take a leave for medical reasons? Did you have to take on full-time work? Each of these reasons can help employers put your GPA and candidacy in context.

What’s your major vs. overall GPA?
High achievement in all your courses is admirable, but it’s really your major GPA that matters most. Take the time to calculate each, and if your major GPA is higher, then include it (and specify that it’s your major GPA). Chances are that it captures the classes and competencies most relevant to the work you’re seeking anyway.

It’s worth repeating: Expand your network.
Networking is particularly important if your GPA is below a 3.0. Your GPA on its own may not earn you consideration, but networking will allow you to make connections and tell a fuller story of your strengths.

After Your First Job
Remember that experience usually trumps other factors when you’re applying for work. As a recent college graduate, hiring managers may look to GPA as a metric of success, but after you’ve been in the workforce, your most important credentials will be your accomplishments and experience. That is to say: You can remove your GPA after your first job.

“After two or three years, your ability to perform at Google is completely unrelated to how you performed when you were in school, because the skills you required in college are very different. You’re also fundamentally a different person. You learn and grow, you think about things differently,” said Laszlo Bock, the Senior Vice President of People Operations for Google, in an interview with The New York Times.
2
সদ্য পাশ করা শিক্ষার্থীরা সিভি তৈরি করবেন যেভাবে


CV সিভি বা curriculum vitae প্রয়োজন হয় যে কোন চাকরির জন্য আবেদন করার সময়। ইন্টারনেটে একটু খুঁজলেই আপনি পেয়ে যাবেন একটি প্রফেশনাল সিভি তৈরির বিভিন্ন নিয়ম। কিন্তু যারা সবেমাত্র পাশ করে বের হয়েছেন বা ১-২ বছরের বেশি কাজ করার অভিজ্ঞতা নেই তাদের সিভির ধরণ আর প্রফেশনালদের সিভির ধরণ কিছুটা ভিন্ন। এই লেখায় আলোচনা করা হবে কিভাবে সদ্য পাশ করা একজন ব্যক্তির সিভি কেমন হওয়া উচিত তা নিয়ে।

1. Title/শিরোনামঃ
এই অংশের প্রথমেই থাকবে আপনার নাম। নিজের পুরো নাম যা আপনার স্কুল/কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্টিফিকেটে আছে তা লিখবেন একটু বড় ফন্টে। প্রয়োজনে তা বোল্ড করে দিন। এর পর লিখবেন আপনার বর্তমান ঠিকানা যেখানে যোগাযোগ করলে আপনাকে পাওয়া যাবে। তারপর ই মেইল এড্রেস এবং মোবাইল বা টেলিফোন নাম্বার। ই মেইল এড্রেসটি নিজের নাম দিয়েই তৈরি করুন। ছদ্ম বা এমন কোন নামে তৈরি করবেন না যা দৃষ্টিকটু।

2. Career Objective/ক্যারিয়ারের উদ্দেশ্য পরিষ্কারভাবে গুছিয়ে লিখুন:
আপনি নিশ্চয় শুধু মাত্র একটি প্রতিষ্ঠানে সিভি পাঠাবেন না? প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানের জন্য আলাদা আলাদা সিভি তৈরি করুন। Career Objective অংশ লিখবেন কোন প্রতিষ্ঠানে যে পদের জন্য আপনি সিভিটি পাঠাচ্ছেন তার সাথে সামঞ্জস্য রেখে। সেই প্রতিষ্ঠান আপনার কাছ থেকে কি কি পেতে পারে, আপনার গুণাবলী তাদের প্রয়োজনীয়তার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ কি না এসব বিষয় মাথায় রাখুন।

3. Educational Background/শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ
এই অংশ শুরু করবেন সর্বশেষ যে কোর্সটি আপনি সম্পন্ন করেছেন তা দিয়ে। মনে করুন আপনি MBA শেষ করেছেন। তাহলে শুরু করবেন এভাবে-

Master Of Business Administration(MBA) (এখানে উল্লেখ করে দিবেন আপনি কোন বিষয়ে MBA করেছেন)
Institution: যে প্রতিষ্ঠান থেকে করেছেন
CGPA: আপনার CGPA যা ছিল
এর পর লিখবেন আপনার BBA কোন প্রতিষ্ঠান থেকে, তারপর HSC সবশেষে SSC.
যদি এমন হয় আপনি BBA বা MBA এর ফাইনাল দিয়েছেন কিন্তু রেজাল্ট এখনো প্রকাশিত হয় নি তাহলে পাশে লিখবেন (Appeared). আর যদি কোন কোর্সে আপনি এখনো পড়ছেন এমন হয় তাহলে পাশে লিখবেন (Ongoing)

5. Computer Skill/কম্পিউটারে দক্ষতাঃ
আজকাল যে কোন চাকরির জন্যই কম্পিউটার জানা আবশ্যক। তাই এ বিষয়ক কোন কোর্স করে থাকলে বা আপনি কম্পিউটারের কোন বিষয়ে পারদর্শী হলে তা এই অংশে উল্লেখ করবেন।

৬. Language Proficiency/ভাষাগত দক্ষতাঃ
কোন কোন ভাষায় আপনার দক্ষতা আছে তা উল্লেখ করবেন। কোন ভাষায় আপনি কথা বলতে পারেন কিন্তু লিখতে পারেন না তাহলে তার পাশে verbal লিখবেন। আর যদি দুটোই পারেন তাহলে Verbal,Written এভাবে লিখবেন। বাংলা আপনার মাতৃভাষা, তাই এর পাশে শুধু Mother tongue লিখলেই চলবে।

7. Hobbies and Interests/শখ এবং আগ্রহঃ
এইখানে আপনাকে একটু বুদ্ধি খাটাতে হবে। আপনি ক্রিকেট ফুটবল ডাকটিকেট সংগ্রহ করা ইত্যাদি লিখে যাবেন না। এমন কিছু লিখবেন যা আপনি যে পদের জন্য আবেদন করছেন তার সাথে সংযুক্ত।

8. Personal Information/ব্যক্তিগত তথ্যঃ
এই অংশে আপনি আপনার নাম, পিতা-মাতার নাম, জন্মতারিখ, লিঙ্গ, বিবাহিত নাকি অবিবাহিত, রক্তের গ্রুপ এবং জাতীয়তা লিখবেন। এর বেশি কিছু লিখার প্রয়োজন হয় না।

9. Reference:
এই অংশে এমন কারো নাম উল্লেখ করুন যিনি আপনার ছাত্র বা কর্মজীবন সম্পর্কে অবগত। তাদের নাম, ঠিকানা, প্রতিষ্ঠানের নাম, ইমেইল এবং মোবাইল নাম্বার লিখুন। রেফারেন্সে ব্যবহার করার আগেই যার নাম উল্লেখ করছেন তাঁর অনুমতি নিয়ে নিন।

সবশেষে মাথায় রাখবেন আপনার সিভিটি এমন ভাবে উপস্থাপন করতে হবে যাতে ২০-৩০ সেকেন্ডেই আপনার সম্পর্কে দরকারি সব তথ্য যিনি পড়ছেন তিনি জেনে নিতে পারেন। কারণ এর চেয়ে বেশি সময় নিয়ে সিভি খুব কম সংখ্যক চাকরিদাতাই পড়েন। ২ পৃষ্ঠার মধ্যেই সিভি সীমাবদ্ধ রাখার চেষ্টা করুন।



c:পরামর্শ.কম
3
CV Writing Skills / ভালো মানের CV লিখার নিয়ম
« Last post by A.Wadud on July 06, 2017, 04:16:58 PM »
একটি ভালো মানের CV লিখার নিয়ম গুলো জেনে নিন।
 
জীবনবৃত্তান্ত বা সিভি যেন আপনার আমার জীবনের গল্প। একটা ভাল মানের চাকরি নিতে গেলে একটা ভাল মানের সিভির প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। তাই এটি হতে পারে আপনার জিবনের সেই গল্প, যা চাকরিদাতাকে আকৃষ্ট ও উৎসাহিত করবে অর্থাৎ আপনার সিভি দেখেই যেন আপনাকে নির্বাচন করতে পারে। ইন্টারনেটে আপনি অনেক সাইট পাবেন যেখানে একটু খুঁজলেই পেয়ে যাবেন একটি প্রফেশনাল সিভি তৈরির হাজার হাজার সুন্দর আর অসুন্দর নিয়ম। আপনি কোন লেখাকে কেন্দ্র করে আপনার পরিপূর্ণ একটি সিভি বানাবেন, এতে বাছাই করতে আপনি হিমশিম খেয়ে যাবেন। তাই সময় নিয়ে আপনার জিবনের প্রাপ্তিগুলো সঠিকভাবে বিশ্লেষণ করে তৈরি করুন সিভি। যেখানে শুধু আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা, প্রশিক্ষণ বা অভিজ্ঞতাই নয়, এর চেয়েও একটু বেশি কিছু যেন থাকে। অর্থাৎ আপনি এই ভেবে বসবেন না যে আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা আকাশ সমান হলেও আপনার চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা জিরো %। আপনারও আকাশ সমান শিক্ষাগত যোগ্যতা আছে, ঐ পাড়ার আবুলেরও আছে তাহলে আপনি তার থেকে ভিন্ন কোথায়? হ্যাঁ, এখানেই আপনাকে একটা ভাল সিভি লেখার মাধ্যমে বুঝিয়ে দিতে হবে যে আমি আবুলের চেয়ে একটু ভাল। এই একটু বেশি কিছুই আপনাকে হাজার হাজার চাকরিপ্রার্থীর মধ্যে আলাদা করে দেবে। কিন্তু যারা সবেমাত্র পাশ করে বের হয়েছেন বা ১-২ বছরের বেশি কাজ করার অভিজ্ঞতা নেই তাদের সিভির ধরণ আর প্রফেশনালদের সিভির ধরণ কিছুটা ভিন্ন। যারা কেবল পাশ করে বের হয়েছেন তাদের কাজের অভিজ্ঞতা না থাকার কারনে প্রফেশনালদের মত সিভি তৈরি করা যায়না। আমি এই লেখায় আলোচনা করব কিভাবে ভালমানের সিভি তৈরি করবেন।



নিম্নে ভাল সিভি লেখার কয়েকটি নির্দেশনা বা পরামর্শ দেওয়া হলঃ-

১. ভাল মানের কাগজ ব্যবহার করাঃ-
প্রথমেই আপনার সিভি লিখতে ভাল মানের কাগজ নির্বাচন করুন। আমি মনে করি এখন খুব কম প্রতিষ্ঠানই কাগজের তৈরি সিভি চায়। আপনাকে আপনার সিভি ইন্টারনেটের যেকোন জব সাইট বা সেই প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে আপলোড বা ইমেইল করতে বলে। তাই আপনি যেখানেই লিখুন না কেন ফন্ট ও লে-আউট যেন সুন্দর ও ঝকঝকে হয়। তাই সিভি লেখার ক্ষেত্রে আপনি কিছু পরিচিত ফন্ট যেমনঃ টাইমস নিউ রোমান, আরিএল বা ভারদানা ফন্ট ব্যবহার করতে পেরেন। এসব ফন্ট দেখতে যেমন ভাল, তেমনি সহজে পড়াও যায়। ফন্ট সাইজের দিকে একটু নজর রাখবেন। ফন্ট সাইজ যেন ১১- এর কম না হয়। এতে আপনার যত্নের ও আন্তরিকতার ছাপ ফুটে উঠবে। এতে চাকরিদাতাও বুঝতে পারবেন, আপনি চাকরি করতে কতটা আগ্রহী।

২. বানান ও ব্যাকরনঃ
একটা ভাল মানের সিভি লিখতে গেলে আপনাকে সব দিকে নজর দিতে হবে। সিভির বানান যেন একটাও ভুল না হয়। সিভিতে বানান ভুল করা যেন বড় ধরনের পাপ। নিয়োগদাতা যেন কোন ভাবেই ধরতে না পারে যে আপনার সিভির বানান ভুল আছে। যদি কখনো বানান চোখে পড়ে তাহলে আপনার সম্পর্কে নেতিবাচক ধারনা তৈরি হবে। আর নেতিবাচক ধারনা তৈরি হলে আপনার চাকরি পাওয়ার ৩০% কমে গেল ভেবে নিবেন। আর ব্যাকরণের দিকটাও ভাবতে হবে। ব্যাকরণগত ভুল যেন না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। তাই মাথা ঠান্ডা করে একটি ভাল মানের সিভি বানাবেন।

৩. সিভির মাপযোগ বা লে-আউট এবং দৈর্ঘ্যঃ
যেমন তেমন মাপের সিভি বানালেই হবেনা সেগুলোর ভাল মত মাপযোগ দিয়ে তৈরি করতে হবে। আজকাল বেশির ভাগ কোম্পানিই অনলাইনে সিভি পাঠাতে বলে। আবার কোন কোন কোম্পানি এখনও কাগজে টাইপ করা সিভি পাঠাতে বলে। তাই লে-আউট ও দৈর্ঘ্য- এই দুটো সিভির জন্য একই রকম হওয়া উচিত।

৪. কিছু বিশেষ গুনাবলিঃ
বেশিরভাগ চাকরির বিজ্ঞাপনে দেখবেন নিয়োগকর্তারা চাকরিপ্রার্থীর মধ্যে কিছু বিশেষ গুণাবলি বা সফট স্কিল চান। এগুলো যদি আপনার মধ্যে থাকে তাহলে আপনার ইতিবাচক দিক হবে। যেমনঃ
১. নমনীয়তা
২. ইতিবাচক হওয়া
৩. যোগাযোগ দক্ষতা
৪. উদ্যোগী মনোভাগ
৫. দলগত ভাবে কাজ করার ক্ষমতা

৫. সব চাকরিতে একই আবেদন সমীচীন নয়ঃ
আপনার মূল বা প্রধান জীবনবৃত্তান্ত কয়েক পৃষ্ঠার হতে পারে। কিন্তু যখন কোথাও আবেদন করবেন, তখন সেই সিভিকে যে পদে আবেদন করবেন, সেই পদের চাহিদা অনুযায়ী সাজাতে হবে। একটি জীবনবৃত্তান্ত দিয়ে সব চাকরিতে আবেদন করা যাবেনা। আরও খেয়াল রাখতে হবে, প্রতিটি পদের জন্য সিভি দুই পৃষ্ঠার বেশি বড় যেন না হয়। প্রথম পৃষ্ঠাই সবচেয়ে জরুরি বিষয় যেমন আপনি যদি কলেজে ফুটবল টিমের দলনায়ক হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি বলতে পারেন আপনার নেতৃত্বদানের দক্ষতা রয়েছে। যারা একটি চাকরি থেকে আর একটি চাকরিতে যাবেন, তারা অবশ্যই আপনার বর্তমান কর্মক্ষেত্রের অভিজ্ঞতা ও সফলতার কথা লিখবেন। মনে রাখবেন, চাকরিদাতা কিন্তু প্রথম পৃষ্ঠার প্রথম দিকের কয়েকটি লাইনই আসলে মনোযোগ দিয়ে পড়েন। সুতরাং প্রথম পৃষ্ঠা ভাল না হলে দ্বিতীয় পৃষ্ঠা পর্যন্ত তিনি যাবেনই না। এভাবে প্রথম পৃষ্ঠাই আপনার প্রমাণ করতে হবে যে আপনিই একমাত্র প্রার্থী এই পদটির জন্য। এরপর দ্বিতীয় পৃষ্ঠাই আপনার পূর্ববর্তী চাকরি, পড়াশোনা ও ব্যক্তিগত অন্যান্য তথ্য দিবেন।

৬. সঠিক রেফারেন্স ব্যবহার করাঃ
সিভি লেখার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে সঠিক রেফারেন্স ব্যবহার করা। সিভিতে রেফারেন্স হিসেবে জার নাম ব্যবহার করেছেন তাকে অবগত করুন ও অনুমতি নিন। তাঁর নাম, পদবি ও যোগাযোগের সঠিক তথ্য ব্যবহার করুন। কারণ, নিয়োগদাতা আপনার দেওয়া রেফারেন্সকে ফোন করে আপনার সম্পর্কে কিছু জানতে পারে। আর আপনি যদি আহামরি ভুল তথ্য দিয়ে থাকেন তাহলে আশাই গুরেবালি ছাড়া কিছুই হবেনা। তাই সঠিক রেফারেল ব্যবহার করুন।


C: Tech Time
4
সফটওয়্যার ডেভেলাপার বা ইঞ্জিনিয়ার নিয়োগের ক্ষেত্রে যেই ইন্টারভিউ হয়, সেখানে একটি কমন জিনিস হচ্ছে কোডিং স্কিলের পরীক্ষা। এর জন্য সাধারণত এক বা একাধিক (মোটামুটি সহজ ধরণের) প্রোগ্রামিং সমস্যা দেওয়া হয়, যেটা নিজের পছন্দমতো কোনো ল্যাঙ্গুয়েজে সলভ করা যায়। এখন ইন্টারভিউ শেষে দেখা যায়, প্রার্থী বেশ খুশি, কারণ তার ইন্টারভিউ খুব ভালো হয়েছে। কিন্তু যিনি ইন্টারভিউ নিয়েছেন, তিনি অতটা খুশি নন। তার কারণ আছে। একটি সহজ উদাহরণ দিয়ে ব্যাখ্যা করি। ধরা যাক, ইন্টারভিউতে বলল, দুইটা সংখ্যা ভাগ করার প্রোগ্রাম লিখেন। তখন তুমি মনে মনে “ওয়াও, এত সহজ কাজ আবার ইন্টারভিউতে দেয়?” চিন্তা করে বললে, “আমি পাইথনে কোড লিখব”। তারপরে ঝটপট নিচের কোড লিখে ফেললে :

x = input()
y = input()
print x / y
তখন ইন্টারভিউয়ার তোমাকে বলল, “আপনি একটা ফাংশন লিখে কাজটা করেন”। “আচ্ছা, ঠিকাছে” বলে তুমি নিচের মতো কোড লিখে ফেললে –

def division(x, y):
    return x / y

x = input()
y = input()
print division(x, y)
এবার তুমি পরিতৃপ্ত, তোমার কোড দেখতে বেশ সুন্দর হয়েছে। কিন্তু ইন্টারভিউয়ারের চেহারা দেখে বোঝা যাচ্ছে, তিনি এখনো তেমন খুশি নন। তখন তিনি জিজ্ঞাসা করলেন, আচ্ছা, y-এর মান যদি 0 হয়?

একথা বলতে না বলতেই তুমি ঝট করে নিচের কোড টাইপ করে মুচকি হাসি দিলে:

def division(x, y):
    try:
        return x / y
    except ZeroDivisionError:
        return "Can not divide by zero"

x = input()
y = input()
print division(x, y)
তুমি মনে মনে ভাবছ, “যাক, এবারের কোড বুলেট প্রুফ”। ইন্টারভিউয়ার এবারে বললেন, আচ্ছা, x-এ 5 আর y-তে 2 ইনপুট দিলে কী হবে? পাইথন (2 সিরিজে)-এ সেটার উত্তর হবে 2। কিছুক্ষণ চিন্তাভাবনা করে তুমি তোমার কোড একটু পরিবর্তন করে নিচের মতো করে লিখলে –

def division(x, y):
    try:
        return x * 1.0 / y
    except ZeroDivisionError:
        return "Can not divide by zero"

x = input()
y = input()
print division(x, y)
এরপর আর এই কোড নিয়ে কোনো প্রশ্ন রইল না। ইন্টিজার ও রিয়েল নাম্বারের জন্য এই কোড কাজ করবে। তুমি ইন্টারভিউ দিয়ে খুশিমনে বাড়ি ফিরে গেলে। কিন্তু কয়েকদিন পরে ইমেইল পেলে যে ওরা তোমাকে নিচ্ছে না। কারণ এই ছোট কোড ঠিকভাবে লিখতে যদি এত সাহায্যের প্রয়োজন হয়, তাহলে আরেকটু বড় কাজ তোমার হাতে দেওয়ার ভরসা ঠিক তোমার টিম লিডার করতে পারবেন না (এই কথা অবশ্য ইমেইলে লেখা থাকবে না)। আর হ্যাঁ, ওপরের কোডে ভ্যারিয়েবলের নামও আরো ভালোভাবে দেওয়া যেত। x-এর বদলে numerator বা num এবং y-এর বদলে denominator বা denom। কারণ অর্থপূর্ণ ভ্যারিয়েবল নামকরণও অনেক গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। সাথে এক লাইন কমেন্ট যোগ করে দিলে ইন্টারভিউয়ার আরো খুশি হতেন।

def division(numerator, denominator):
    """ Divides numerator by denominator. In case the denominator is    zero, it returns None
    """
    try:
        return numerator * 1.0 / denominator
    except ZeroDivisionError:
        print "Can not divide by zero"
        return None
আশা করি তোমরা ইন্টারভিউতে প্রশ্ন শুনেই কোডিংয়ে ঝাঁপিয়ে পড়বে না। তাই তোমার জন্য টিপস্ হচ্ছে –

প্রশ্ন বুঝেছ কী না, চিন্তা করবে, কোনো জিজ্ঞাসা থাকলে প্রশ্ন করবে,
প্রোগ্রামের কর্নার কেসগুলো চিন্তা করবে এবং যথাযথ কোডিং করবে,
ভ্যারিয়েবলের নামকরণ ভালোভাবে করবে,
দরকার হলে কমেন্টও লিখবে।


C: সুবিন ডট কম
5
আত্নবিশ্বাষ কে আরও বাড়িয়ে দিতে ছেলেবেলায় আপনার মা বাবা আপনাকে নিশ্চয়ই উত়্সাহিত করতেন। শধু নিজের কাছে না আপনার বিশেষত্ব কে সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে। সে সময় হয়ত আপনি তাদের কথা শুনেছেন কিন্ত গ্রাহ্য করেন নি। কিন্তু এই এসব ইমোশনাল এর মূল্য আজকের এই আধুনিক বিশ্বে নেই। আপ্নার দক্ষতা, আপনার উপার্জন, আপনার কর্মক্ষমতা এই বিষয়সমুহকে প্রাধান্য দিয়ে থাকে।  এই চাহিদা সমূহ একটি কোম্পানির ক্ষেত্রেও  থাকে। বিশেষ করে, আপনি যখন কোন কম্পানিতে আবেদন করে, যোগ্য প্রার্থী হওয়া স্বত্বেও বাদ বাদ পরে যান, আর আপনার চেয়েও অধিক  যোগ্য প্রার্থী হিসেবে চাকরি টি পেয়ে যান। এর প্রধান কারন আপনার উপস্থাপন  আরও বেশি অসাধারণ হওয়া চাই, সেই সাথে নিয়োগকর্তা কে উপলব্ধি করতে দিন যে আপনি তার প্রতিষ্ঠানের জন্য মূল্যবান। তবে কিভাবে এই কৌশল অবলম্বন করবেন তা জানতে নিচের লেখটি পড়তে পারেন।

১। সু্যোগ খুজে নিনঃ

এভাবে বলা যেতে পারে, আপনি কোন কম্পানীতে চাকরি সুযোগ খুজছেন আর তার জন্য নিজে থেকে সেই কোম্পানির সব খবর রাখা এবং এই সম্পরকে নিয়োগকর্তার  সাথে যোগাযোগ আপনার আগ্রহ কে বাড়িয়ে দেয়। আপনি সহজেই উক্ত কোম্পানির  দৃষ্টি  আকর্ষণ করতে পারবেন। এইক্ষেত্রে সামাজিক মাধ্যম সমুহ  অনেক সাহায্য করে থাকে। তাই নিজ উদ্যোগে সুযোগের খবরা খবর পেতে আজই উঠে পড়ে লাগুন ফলে যখনই আপনি কোথাও আবেদন করবেন আপনার নাম পরিচিতি লাভ করবে।

২। শুধু কভার লেটার নয়ঃ

আবেদন করার জন্য প্রত্যেক প্রার্থী কভার লেটার লিখে থাকে, তাই নিজে কে অনন্য করে তুলতে নিজের দক্ষতা, গুনাবলি, আগ্রহের বিষয়, অথবা যে কোন বিষয়ে আপনার পারদর্শিতা অথবা গবেষণা সংক্রান্ত তথ্য তুলে ধরুন, এটা কোম্পানীর জন্য ভাল হবে। জন এফ কেনেডি এই প্রসঙ্গে বলেন, কোম্পানি কি করতে পারে জিজ্ঞেস না করে, আপনি কি করতে পারেন সে সম্পর্কে বলুন।

৩।  আভ্যন্তরিন সু্যোগ সম্পরকে জানুনঃ

এই পরামর্শ কিছুটা কৌশলী, কিন্তু কার্যকর। আপনার পছন্দের কোম্পানি তে চাকরিরত আছেন এমন কারো সাথে সু- সম্পরক বজায় রাখুন। সবচেয়ে ভাল হয় আভ্যন্তরিন সুযোগ সুবিধাসমুহ সম্পরকে খোজ রাখতে পারলে। মনে রাখবেন নিয়োগকারি শুধু কভার লেটার আর সিভি পেতে আগ্রহী নয়। আপনার তার সাথে সম্পরকের কতটা উন্নতি হয়েছে, এবং আপনি আপনার কে তার সামনে উপস্থাপন করবেন তার উপর অনেকটাই নির্ভর করে। পারসনাল রেফারেন্স আপনার চাকরি প্রাপ্তিতে অনেকটাই উপকার করবে। 

৪। সত্যতা বজায় রাখুনঃ

প্রত্যেকেই সত্য পছন্দ করেন, বিশেষ করে যারা আপনার সাথে কাজ করবেন। আমরা প্রার্থীদের সত্য কথা বলার উপদেশ দেই। তাদের দেখান আপনি গতানুগতিক ভাবে অগ্রসর হন না, আপনার প্রতিভা কে দেখান, আপনার ম্যানেজার কে আপনার আগ্রহ সম্পরকে জানান।

৫। আপনার দক্ষতা প্রদর্শন করুন:

আপনার একটি গোছানো কভার লেটার, সিভি, এবং রেফারেন্স এর মাধ্যমে আপনি অনেকদুর যেতে পারেন। আপনি সাফল্যের দরজায় প্রবেশ করবেন সেই সাথে সাফল্য অর্জন এ পেছনে ফিরে তাকাবেন না। আপনার বিশেষ দক্ষতাকে প্রদর্শন করার জন্যই আবেদন করেছেন তা নিশ্চিত করুন। উদাহরণস্বরুপ, আপনি যদি একজন লেখক হয়ে থাকেন ইন্টারভিউ এর সময় আপনার পোর্টফোলিও টি সঙ্গে রাখুন। আপনার এখিন পর্যন্ত সবচেয়ে চমৎকার অর্জন সম্পরকে আপনার নিয়োগকারী কে বলুন   

৬। জিজ্ঞাসা করুনঃ 

আপনার ইন্টারভিউ এর সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়ে গিয়েছে নিশ্চই, ইন্টারভিউ এর প্রচলিত প্রশ্নের উত্তর জানার পাশাপাশি আপনি নিয়োগকর্তা কে কি প্রশ্ন করবেন তার ও প্রস্তুতি নিয়ে নিন। ইন্টারভিউ বোর্ডে   আপনার প্রশ্ন, আপনার কোম্পানি সম্পরকে আগ্রহ কে উপস্থাপন করবে, সেই সাথে আপনার এই চাকরি তে নিয়োগ সম্পরকিত  সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করবে।

৭। নিজের কিছু দায়িত্বঃ

আজকের এই আধুনিক যুগে ডিজিটাল প্রোফাইল নেই এমন কাউকে খুজে পাওয়া প্রায় অসম্ভব। অনলাইনের মাধ্যমে আপনার আবেদন নিয়োগকারীর কাছে আপনার সম্ভাব্যতা বেড়ে যায়। এছাড়া ও লিঙ্কডিন এ আপনার একটি প্রোফাইল তৈরি করে রাখতে পারেন যেখানে আপনার সকল তথ্য, পূর্ব কাজের অভিজ্ঞতা, আপনার কাজের দায়িত্ব সম্পরকিত তথ্য  সামঞ্জস্য  ভাবে সজ্জিত থাকবে।

৮। প্রচেষ্টা রাখুনঃ

আপনার প্রচলিত ইন্টারভিউ এর প্রশ্ন ও এর উত্তর এর বাইরেও নিজের প্রচেষ্টা কে সামনে রেখে চাকরি প্রাপ্তির জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে। আরও বেশি সক্রিয় হোন, যাতে করে নিয়োগকারি আপনাকে একজন আদর্শ প্রার্থী মনে করেন। আপনার বিশেষত্ব সম্পর্কে নতুন তথ্য দেয়ার চেষ্টা করুন। কিছু নিয়োগকরতা আছেন যারা হয়ত আপনার কাছ থেকে কিছু শিখতে চাইবেন আর তাই নিজের বিশেষত্ব দিয়ে কিছু শেখানোর চেষ্টা করুন।

৯। আগ্রহ প্রকাশ করুনঃ

নিয়োগকর্তাগন তাদের চাকরি ও প্রতিষ্ঠান নিয়ে  গর্বিত হয়ে থাকেন। শুধু বেতনের জন্য চাকরি করেন এমন নিয়োগকর্তা খুযে পাওয়া কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। আর তাই নিয়োগের জন্য এমন প্রার্থী খুজেন যাদের সত্যিকার অর্থে এই প্রতিষ্ঠানে কাজ করার জন্য আগ্রহ  আছে। আপনার আগ্রহ কে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে আজই  ভালভাবে প্রস্তুতি পর্ব   শুরু করুন।

১০। বাস্তব উত্তর দিনঃ

নিয়োগকর্তা জানতে চান আপনি এই কোম্পানির জন্য কি করতে পারবেন?  যেমনটি জন এফ কেনেডি এর  উদ্ধৃতির কথা মনে করিয়ে দেয়।  কোনও সংস্থাকে আপনি কি দিতে পারেন তা জিজ্ঞাসা করবেন না (অন্তত প্রথমে না) বরং তা দেখান যা আপনি তাদের দিতে পারেন। আপনার সম্ভাব্য মান প্রদর্শন এর সেরা উপায়সমুহ কে উপস্থাপন করুন। কেবলমাত্র আপনার দৈনন্দিন দায়িত্ব সম্পর্কে বলুন, তাদের দেখান যে কীভাবে আপনি কোম্পানির একটি বিন্দু থেকে  শুরু করে  কোথায়  যেতে সক্ষম। এক্ষত্রে  আপনার পরিসংখ্যান ব্যবহার করতে পারেন, সংখ্যাগত তথ্য আপনার দক্ষতা সম্পরকে সঠিক ধারনা দেবে।

১১। ফলো আপ ঃ

ইন্টারভিউ এর জন্য সবচেয়ে  গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ ফলো আপ। সবচেয়ে ভাল হয় আপনি যখন ই-মেইল এর মাধ্যমে যোগাযোগ করবেন। ইন্টারভিউ এর পর ই-মেইল কোম্পানির কাছে গ্রহনযোগ্যতা বাড়িয়ে তোলে। ইন্টারভিউ এর ১ সপ্তাহ পরঈ আপনি ই-মেইল এর মাধ্যমে তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। আপনার সংক্ষিপ্ত মেইল অথবা একটি সুন্দর ফোন কল ই যথেষ্ট।

ইন্টারভিউ  মোকাবেলার জন্য এই কৌশল ই একমাত্র উপায় নয়। আপনাকে সুন্দরভাবে শুরুটা করতে হবে আপনার জায়গা থেকে। ইন্টারভিউ এর পূর্বে আপনার সুসম্পন্ন প্রস্তুতি নিশ্চিত করুন। যদি স্বপ্নের চাকরী খুজে পেতে এবং নতুন চাকরির খোজ পেতে এখনই এভারজবস এ ভিজিট করুন ।


C: Everjob
6
Wining Interview Techniques / Interviewing Question and appropriate Answer.
« Last post by A.Wadud on July 04, 2017, 10:29:49 AM »
                                                 Interviewing Tips

Introduction:

The interview is when employers will get to know your personality, interests, goals, and objectives. You will no longer be a list of skills and experiences on a piece of paper; this is your opportunity to give specific examples and anecdotes and explain how these experiences make you the perfect candidate for the position. It is the perfect time to demonstrate your interest in the position and your knowledge about the company and the industry. This is the time for the employer to find out who you are, so be yourself.

TIPS FOR INTERVIEW:

Here are a few suggestions on how to approach the interview process:
Research the company. It is good to become familiar with the organization, the position and the person who may be your boss. Try to match your skills and experience to the position you are seeking.
Look good. First impressions are lasting, so make it count. Projecting a confident and professional image is essential. Dress professionally, but don't overdo it with jewelry or excessive perfume or cologne.
Know the location of the interview. Consider driving/ arriving at the location in advance. Rushing around trying to find the facility can add to your nervousness.
Know your resume. Be prepared to discuss and defend every aspect of your education and career experience.
Focus more on the interview, less on the job. There's time to evaluate the job and whether you want it after the interviewer has learned about you. For now, your goal is to get invited back for a second interview or an offer. Then you can decide if the job is just what you want.
Talk about your previous contributions. Prospective employers are interested in knowing how you made a difference in your previous job. In a way, you need to convince the interviewer that you're the answer to the company's needs.
Look for ways to sell yourself. Seize opportunities to tell the prospective employer how good you are. Be careful not to boast, but speak confidently about your skills.
Don't overdo it. Choose your words carefully and don't talk too much. Most people only retain 20 percent of what they hear. Select your words, speak clearly and get to the point.
Avoid fear by visualizing the interview. It's just an interview, not the gallows, so imagine the experience in advance. Try to visualize various things like your clothing, items to bring, physical presentation, eye contact, body language, etc.
Listen carefully. Pause briefly after each question before you respond to be sure the interviewer has finished speaking. Answer questions directly and concisely. If you don't understand, ask for clarification.
Bring your questions. You also are interviewing the company, too. Start with questions about the organization and move to career growth, working conditions, etc. Save benefits and compensation for last.
Write down important data. Get the names and titles of the people with whom you interview. Be sure the spelling is correct, as you may need the information later.
Don't run away. After the interview, don't just hop up and head down the hall. Try to leave a good final impression by letting the interviewer know you really want the job and that you're ready to move to the next step in the employment process. If that doesn't feel right, simply ask about the next step in the process.
Obtain resources. Grab an annual report, product information or other data that will give you a better picture of the company and the kind of work you might be doing.
Don't become invisible. Following the interview there is a way in which you can be contacted, even if you are out of town.

TYPICAL QUESTIONS ANSWERED:
Here is a list of the repeated questions that relate to almost any type of job. Please note that an interviewer may also ask questions that relate to the specific position that you are applying for.

Tell something about yourself.
The most often asked question in interviews. You need to have a short statement prepared in your mind. Be careful that it does not sound rehearsed. Limit it to work-related items unless instructed otherwise. Talk about things you have done and jobs you have held that relate to the position you are interviewing for. Start with the item farthest back and work up to the present. Since this is often the opening question in an interview, be extra careful that you don't run off at the mouth. Keep your answer to a minute or two at most. Cover five topics including personal introduction, early years, education, work history, and recent career experience. Emphasize this last subject. Remember that this is likely to be a warm-up question. Don't waste your best points on it.

What is your greatest / best strength? Or, what is your strength?
For this question numerous answers are good, just stay positive. A few good examples may be a) Your ability to prioritize, b) Your problem-solving skills, c) Your ability to work under pressure, d) Your ability to focus on projects, e) your professional expertise, f) your leadership skills, g) your positive attitude towards works etc., in addition to your strong academic background.

Tell something about your weakness. Or what are your weakness?
The interviewer who asks this question is looking to see how honest you are with yourself, and how well you deal with your own shortcomings.
Bit of a tricky question this, after all no one wants to show their weaknesses but we all have them. Don't pretend you don't have weaknesses, and don't avoid answering the question. This is your chance to show that you are honest and take responsibility for your actions.
A good way to answer this question is to mention your weakness, then tell what you have done to overcome that weakness. If you have been disorganized in the past, you could say, "I used to be very disorganized, always forgetting assignments and birthdays. But I managed to work out a computerized system of to-do lists and reminders that keeps me on top of everything. "You could also say, I don't have straight way transport or bus service from my residence to the office. So, during the rainy days I had difficulties in finding a rickshaw to reach the bus stop and I would get late, occasionally. Now on the raining days, I get up earlier in the morning and rush out to my office to reach on time."
The most comprehensive way of dealing with this question is to try and turn it into a "positive" from a "negative".

Do you consider yourself successful?
You should always answer yes and briefly explain why. A good explanation is that you have set goals, and you have met some and are on track to achieve the others.

What do you know about this organization?
This question is one reason to do some research on the organization before the interview. Find out where they have been and where they are going. You should be able to discuss products or services, revenues, reputation, image, goals, problems, management style, people, history and philosophy. But don't act as if you know everything about the place. Let your answer show that you have taken the time to do some research, but don't try to overwhelm the interviewer, and make it clear that you wish to learn more. You might start your answer in this manner: "In my job search, I've investigated a number of companies. Yours is one of the few that interests me, for these reasons..."
Give your answer a positive tone. Don't say, "Well, everyone tells me that you're in all sorts of trouble, and that's why I'm here", even if that is why you're there.

Are you applying for other jobs?
Be honest but do not spend a lot of time in this area. Keep the focus on this job and what you can do for this organization. Anything else is a distraction.

Why do you want to work for this organization?
This may take some thought and certainly, should be based on the research you have done on the organization. Sincerity is extremely important here and will easily be sensed. Relate it to your long-term career goals.
Your resume suggests that you may be over-qualified or too experienced for this position. What's your opinion?
Emphasize your interest in establishing a long-term association with the organization, and say that you assume that if you perform well in his job, new opportunities will open up for you. Mention that a strong company needs a strong staff. Observe that experienced executives are always at a premium. Suggest that since you are so well qualified, the employer will get a fast return on his investment. Say that a growing, energetic company can never have too much talent.

What important trends do you see in our industry?
Be prepared with two or three trends that illustrate how well you understand your industry. You might consider technological challenges or opportunities, economic conditions, or even regulatory demands as you collect your thoughts about the direction in which your business is heading.

How do you handle stress and pressure?
A typical interview question, asked to get a sense of how you handle on-the-job stress, is "How do you handle pressure?" Examples of good responses include:
Stress is very important to me. With stress, I do the best possible job. The appropriate way to deal with stress is to make sure I have the correct balance between good stress and bad stress. I need good stress to stay motivated and productive.
I react to situations, rather than to stress. That way, the situation is handled and doesn't become stressful.
I actually work better under pressure and I've found that I enjoy working in a challenging environment.
From a personal perspective, I manage stress by visiting the gym/ walking a mile every evening. It's a great stress reducer.
Prioritizing my responsibilities so I have a clear idea of what needs to be done when has helped me effectively manage pressure on the job.
If the people I am managing are contributing to my stress level, I discuss options for better handling difficult situations with them.

Why did you leave your last job?
Stay positive regardless of the circumstances. Never refer to a major problem with management and never speak ill of supervisors, co-workers or the organization. If you do, you will be the one looking bad. Keep smiling and talk about leaving for a positive reason such as an opportunity, a chance to do something special or other forward-looking reasons.

What experience do you have in this field?
Speak about specifics that relate to the position you are applying for. If you do not have specific experience, get as close as you can.

What kind of salary do you need?
A loaded question. A nasty little game that you will probably lose if you answer first. So, do not answer it. Instead, say something like, "that's a tough question. Can you tell me the range for this position?"
In most cases, the interviewer, taken off guard, will tell you. If not, say that it can depend on the details of the job. Then give a wide range. If you are asked the question during an initial screening interview, you might say that you feel you need to know more about the position's responsibilities before you could give a meaningful answer to that question. Here, too, either by asking the interviewer or 'Executive Search firm' (if one is involved), or in research done as part of your homework, you can try to find out whether there is a salary grade attached to the job. If there is, and if you can live with it, say that the range seems right to you. But whenever possible, say as little as you can about salary until you reach the "final" stage of the interview process. At that point, you know that the company is genuinely interested in you and that it is likely to be flexible in salary negotiations.

Are you a team player?
You are, of course, a team player. Be sure to have examples ready. Specifics that show you often perform for the good of the team rather than for yourself are good evidence of your team attitude. Do not brag, just say it in a matter-of-fact tone. This is a key point.

Explain how you would be an asset to this organization.
You should be anxious for this question. It gives you a chance to highlight your best points as they relate to the position being discussed. Give a little advance thought to this relationship.
Tell me about your dream job.
Stay away from a specific job. You cannot win. If you say the job you are contending for is it, you strain credibility. If you say another job is it, you plant the suspicion that you will be dissatisfied with this position if hired. The best is to stay generic and say something like: A job where I love the work, like the people, can contribute and can't wait to get to work.

What is more important to you: the money or the work?
Money is always important, but the work is the most important. There is no better answer.

What has disappointed you about a job?
Don't get trivial or negative. Safe areas are few but can include:
Not enough of a challenge. You were laid off in a reduction Company did not win a contract, which would have given you more responsibility.
Tell me about your ability to work under pressure.
You may say that you thrive under certain types of pressure. Give an example that relates to the type of position applied for.

What motivates you to do your best on the job?
This is a personal trait that only you can say, but good examples are:
Challenge, Achievement, Recognition

Would you be willing to relocate if required?
You should be clear on this with your family prior to the interview if you think there is a chance it may come up. Do not say "yes" just to get the job if the real answer is "no". This can create a lot of problems later on in your career. Be honest at this point and save yourself future grief.

What have you learned from mistakes on the job?
Here you have to come up with something or you strain credibility. Make it small, well intentioned mistake with a positive lesson learned. An example would be "working too far ahead of colleagues on a project and thus throwing coordination off".

What do you look for when You hire people?
Think in terms of skills, initiative, and the adaptability to be able to work comfortably and effectively with others. Mention that you like to hire people who appear capable of moving up in the organization.

What do you think is the most difficult thing about being a manager or executive?
Mention planning, execution, and cost-control. The most difficult task is to motivate and manage employees to get something planned and completed on time and within the budget.

Why are you leaving (did you leave) your present (last) job? (if there is one)
Be brief, to the point, and as honest as you can without hurting yourself. Refer back to the planning phase of your job search. Where you considered this topic as you set your reference statements. If you were laid off in an across-the-board cutback, say so; otherwise, indicate that the move was your decision, the result of your action. Do not mention personality conflicts. The interviewer may spend some time probing you on this issue, particularly if it is clear that you were terminated. The "We agreed to disagree" approach may be useful. Remember that your references are likely to be checked, so don't make-up a story for an interview.

In your current (last) position, what features do (did) you like the most? The least?
Be careful and be positive. Describe more features that you liked than disliked. Don't cite personality problems. If you make your last job sound terrible, an interviewer may wonder why you remained there until now.

What do you think of your boss?
Be as positive as you can. A potential boss is likely to wonder if you might talk about him in similar terms at some point in the future.

What are your long-range goals?
Refer back to the planning phase of your job search. Don't answer, "I want the job you've advertised." Relate your goals to the company you are interviewing: 'in a firm like yours, I would like to..."

Do you have any questions for me?
Always have some questions prepared. Questions prepared where you will be an asset to the organization are good. How soon will I be able to be productive? and What type of projects will I be able to assist on? Are examples.

Where do you expect your career to be in 10 years?
(Be careful here. You do not want to give the impression that you're simply using this company as a stepping-stone to another career. Think of a related managerial position within the company that would interest you.)
There is a story about a young accountant who was asked this question by a CPA (Certified Public Accountant) firm during an interview. The young accountant replied that he saw himself as the comptroller of a large corporation. In other words, "I'm just using your firm to teach me and then after you spend your resources training me, I will leave to go work for someone else." Needless to say, he was not offered a position with the CPA firm. They know that 75% of the people they hire will leave within 10 years, but they do not want to hire someone who comes in with that plan.
Describe your Management style.
Try to avoid labels. Some of the more common labels, like progressive, salesman or consensus, can have several meanings or descriptions depending on which management expert you listen to. The situational style is safe, because it says you will manage according to the situation, instead of one size fits all.


FINAL NOTE:
You can never be sure exactly what will happen at an interview, but you can be prepared for common interview questions. Take time to think about your answers now. You might even write them down to clarify your thinking. The key to all interview questions is to be honest, and to be positive. Focus your answers on skills and abilities that apply to the job you are seeking.
                                                                                             BEST OF LUCK.




C:bdjobs.com
7
ক্যারিয়ার প্লানিং: গুরুত্ব ও পদ্ধতি

ক্যারিয়ার কি

মস্তিষ্কজাত অপার সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে ব্যক্তিগত সফলতার সাথে সাথে মানবজাতিকে উপকৃত করাই ক্যারিয়ার ভাবনার মূল উদ্দেশ্য। ক্যারিয়ার শিক্ষা এবং প্রশিক্ষণের সাথে সম্পর্কিত বিষয়। যেখানে আনুষ্ঠানিক শিক্ষা কিংবা প্রশিক্ষণ নেই, ক্যারিয়ার সেখানে অনুপস্থিত। এ কারণে অশিক্ষিত একজন কৃষক এবং শিক্ষিত একজন কৃষিবিদ যখন কৃষিকে জীবিকা অর্জনের ক্ষেত্র হিসেবে অবলম্বন করেন, তখন কৃষকের জন্য কৃষি পেশা হলেও কৃষিবিদের জন্য তা ক্যারিয়ার। তাছাড়া, ক্যারিয়ার অর্থ শুধু পেশা নয়, পেশার অতিরিক্ত ব্যক্তির সহজাত গুণাবলী, জীবনের লক্ষ্য, উচ্চাকাঙ্ক্ষা, লালিত বিশ্বাস ও আদর্শ, সন্তুষ্টি, মানবিক দায়িত্ব, অর্থ প্রাপ্তি ইত্যাদি বিষয়গুলো ক্যারিয়ারে ওতপ্রোতভাবে অন্তর্ভূক্ত। বর্তমানে পেশাদারিত্বের (Professionalism) সাথে বৈশিক চেতান (Globalisation) সংযুক্ত হওয়ায় career ভাবনায় আসছে নানামাত্রিক পরিবর্তন।

Career এর আভিধানিক অর্থ- জীবনের পথে অগ্রগতি, জীবনায়ন, বিকাশক্রম, জীবিকা অর্জনের উপায় বা বৃত্তি ইত্যাদি। Cambridge International Dictionary of English- এ ক্যারিয়ারের যে সংজ্ঞা প্রদান করা হয়েছে তা হলো- “শিক্ষা বা প্রশিক্ষণের ভিত্তিতে অর্জিত এমন এক কর্ম যেখানে ব্যক্তির সমগ্র কর্মজীবনে গুণগত এবং অভিজ্ঞতা সম্পর্কিত উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি আসে, দায়িত্বের ব্যাপকতা বৃদ্ধি পায় এবং জীবন যাপনে পর্যাপ্ত অর্থের নিশ্চিয়তা থাকে।”

তবে ক্যারিয়ার অর্জনে একটি সুস্পষ্ট ও সুউচ্চ টার্গেট মানুষের সাধনা ও গতিকে কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিতে পারে। মূলত এর এভাবেই আমরা নিজকে একটি সুন্দর পর্যায়ে উন্নীত করতে পারি না। যে সময় পারস্য সম্রাজ্য ছিল বিশ্বব্যাপী এক অপরাজেয় শক্তি আর মুসলমানেরা ছিল হাতে গোনা সামান্য ক’জনার মিলিত শক্তি, ঠিক সেই সময়ই মুসলিম শক্তি কর্তৃক পারস্যের পদানত হওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন আল্লাহর রাসূল সা. । এটি একদিকে যেমন কাফেরদের হাসাহাসির কারণ হয়েছিল অপরদিকে মুসলমানদেরকে দীপ্ত সাহসী ও পরিশ্রমী করেছিল। আর এভাবেই পরবর্তিতে পারস্য বিজয় সম্পন্ন হয়েছিল। এক কাঠুরিয়াল ছেলে সুদৃঢ় স্বপ্ন দেখেছিল সে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হবে। সাধনার বলে তিনিই হয়েছিলেন আব্রাহাম লিংকন। সুতরাং ক্যারিয়ার অর্জন বা মৌলিক সাফল্যের জন্য একটি সুস্পষ্ট ও সুউচ্চ টার্গেট নির্ধারণ অত্যন্ত জরুরি। বিশ্ববিজয়ী এক অনন্য বীর জুলিয়াস সিজার বলতেন, অধিকাংশ মানুষ বড় হতে পারে না, কারণ সে সাহস করে আকাশের মত সুউচ্চ টার্গেটের দিকে তাকাতে পারে না।’

ক্যারিয়ার প্লানিং কেন প্রয়োজন

ভূমিকা

মানব উন্নয়নের দীর্ঘমেয়াদী প্রয়োজন পূরণের উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে ক্যারিয়ার পরিকল্পনা হওয়া উচিত। দ্রুত পরিবর্তনশীল পরিস্থিতিতে সময়ের চাহিদা পূরণ এবং ব্যক্তির সামর্থ ও উচ্চাকাঙ্ক্ষা ইত্যাদি বিষয়গুলো ক্যারিয়ার পরিকল্পনায় স্থান পাওয়া উচিত।

ইচ্ছা করলেই কি আমি সবকিছু হতে পারি? না তবে অনেক কিছুই হতে পারি। মনের শক্তি দিয়ে মানুষ যে রোগ ও দৈহিক পঙ্গুত্বকেও উপহাস করতে পারে তার প্রমাণ বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং। লিখতে পারেন না, কথা বলতে পারেন না, দুরারোগ্য মোটর নিউরোন ব্যাধিতে ক্রমান্বয়ে নিঃশেষ হওয়ার পথে এগিয়ে যেতে যেতেও তিনি বিশেষ ভাবে তৈরী কম্পিউটারের সহযোগিতায় রচনা করেছেন বর্তমান যুগের বিজ্ঞান জগতের সবচেয়ে আলোড়ন সৃষ্টিকারী গন্থ, এ ব্রীফ হিষ্ট্রি অব টাইম। হুইল চেয়ার থেকে তুলে যাকে বিছানায় নিতে হয় তিনি অবলীলায় মহাবিশ্ব পরিভ্রমণ করে উপহার দিয়েছেন বিশ্ব সৃষ্টির নতুন তত্ত্ব। আইনস্টাইনের পর তাঁকেই মনে করা হচ্ছে বিশ্বের প্রধান বিজ্ঞানী। বিংশ শতাব্দির বিস্ময় আলবার্ট আইনস্টাইন দুই বার নোবেল প্রাইজ পেয়েছিলেন। তাঁর প্রদত্ত Theory of Relativity বেশ কয়েক বছর পর্যন্ত বিশ্ববাসী ভাল করে বুঝতেই পারেনি। অথচ এই আবিষ্কারের ফলে প্রচলিত বহু বৈজ্ঞানিক সূত্রের পরিবর্তন ঘটাতে হয়েছে পরে। এই বিজ্ঞানী intermediate level- এর ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম বছরে অকৃতকার্য হয়েছিলেন। নেপোলিয়ন তাঁর ভাগ্য রেখা তৈরী করার জন্য নিজে নিজের হাতের তালু কেটেছিলেন একবার। তাঁর অদম্য স্পৃহা এবং অনড় আত্মবিশ্বাস তাঁকে একজন ইতিহাস জয়ী সমরিক অফিসার হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হতে সাহায্য করেছে। এবারে একটু rearrange করে দেখিতো তাদেরকে অর্থাৎ আইনস্টাইনের কর্মকাণ্ডে নেপোলিয়ান, আর যুদ্ধক্ষেত্রে সেনাপতি হিসাবে আইনস্টাইনকে দাঁড় করে। কাজ দুটোর কোনটিই যে সম্পন্ন হবে না তা নির্ঘাত বলা চলে। কিন্তু কেন?

বিভিন্ন পেশার দাবি বিভিন্ন

প্রকৃতপক্ষে এক এক পেশার দাবি এক এক ধরণের গুণাবলী। কে কোন পেশায় যাওয়ার জন্য উপযোগী তা নির্ধারিত হয়ে থাকে বহুলাংশে তাঁর সহজাত গুণাবলীর উপরে। এই গুণাবলী এবং ব্যক্তিগত আগ্রহ ধরে হিসাব করতে হয় কে কোন পেশায় নিয়োজিত করবে নিজেকে। বর্তমান সময়ে জগৎটি বড় বেশি প্রতিযোগিতাপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এ দেশের অবস্থাতো আরও বেশি গুরুতর। জনসংখ্যার অনুপাতে আমাদের দেশে সুযোগ সুবিধা যথার্থই অপ্রতুল। এ অবস্থায় একটি সুন্দর পেশা অর্জন প্রকৃত অর্থেই সুকঠিন হয়ে পড়েছে। বর্তমান সময়ে এ দেশের যে কোন যুবকের পার্থিব জীবনের প্রয়োজনে এই অর্জটুকুর জন্যে ঘাম ঝরাতে হয় বহুদিন যাবৎ। প্রশ্ন হচ্ছে কিভাবে? তার জন্য প্রয়োজন সঠিক পরিকল্পনা এবং দৃঢ় পদক্ষেপ নেবার।

ক্যারিয়ার প্লানিং: কেন?

একটা উদাহরণ দেই এ পর্যায়ে। ধর তুমি ট্রেনে সিলেটে যাবে। এ উদ্দেশ্যে রেল স্টেশনে দিয়ে হাজির হয়েছো। ভুলবশত বা অন্য কোন কারণে জেনে নাওনি কোন ট্রেন সিলেটে যাবে। পাশাপাশি দুটো প্লাটফর্মে দাঁড়ানো দুটো ট্রেনের যে কোনটিতে উঠেই কি তুমি সিলেটে যেতে পারবে? না পারবে না। তোমার জীবনের ঈপ্সিত গন্তব্যস্থলেও পৌছার ব্যাপারে একই ধরনের সমস্যায় ফেলবে তোমাকে। সঠিক পরিকল্পনা নিতে হবে তোমাকে এবং সঠিক সময়েই তা নিতে হবে এই লক্ষ্যে পৌছার জন্যে। আর যদি লক্ষ্যই ঠিক না হয়ে থাকে তবে কোথায় যাবে তুমি শেষ পর্যন্ত? এভাবে এদেশের অধিকাংশ যুবকের ক্ষেত্রেই সিদ্ধান্তহীনতা সমস্যা সৃষ্টি করছে সঠিক পেশায় পৌছার ব্যাপারে। তাই প্রয়োজন ক্যারিয়ার প্ল্যানিং অর্থাৎ প্রথমে পেশা নির্বাচন এবং পরে সে অনুযায়ী নিজেকে গড়ে তোলা।

ক্যারিয়ার প্ল্যানিং পদ্ধতি

ক্যারিয়ার প্ল্যানিং

অদূর ভবিষ্যতে করণীয় কার্যসমষ্টির অগ্রিম সুচিন্তিত বিবরণই পরিকল্পনা। এটা আমরা কোথায় আছি এবং ভবিষ্যতে কোথায় যেতে চাই তা মধ্যকার সেতুবন্ধন।

ক্যারিয়ার সংক্রন্ত পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং তা বস্তবায়নের পদ্ধতিকেই ক্যারিয়ার প্ল্যানিং বলে। ক্যারিয়ার প্ল্যানিং হচ্ছে জীবনব্যাপী একটা নিরন্তর প্রচেষ্টার নাম যা পেশা নির্ধারণ, চাকুরি, চাকুরির সাথে সাথে জীবনযাপন, চাকুরি থেকে অবসর, দেশ ও দেশের মানুষের স্বার্থ সংরক্ষণ ইত্যাদি বিষয়কে অন্তর্ভূক্ত করে। বাস্তবসম্মত, সময়োপযোগী এবং পছন্দসই ক্যারিয়ার নির্বাচনের ক্ষেত্রে ক্যারিয়ার প্ল্যানিং মূলত সববয়সী মানুষের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। পেশা নির্বাচনের ক্ষেত্রে যারা সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগেন, ক্যারিয়ার প্ল্যানিং তাদের যথোপযুক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিতে পারে। তাছাড়া শিক্ষা, অভিজ্ঞতা ও চাকুরি খোঁজার ক্ষেত্রেও একজন ক্যারিয়ার সচেতন মানুষের জন্য ক্যারিয়ার প্ল্যানিং এর সহযোগিতা অপরিহার্য।

ক্যারিয়ার পরিকল্পনা: যেভাবে

প্রয়োজনীয় শিক্ষা শেষে কোন পেশার প্রবেশের পূর্বে একজন ব্যক্তির ক্যারিয়ার পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হয়। বাংলাদেশের চাকুরির বাজার তীব্র প্রতিযোগীতাপূর্ণ হওয়ায় এই পরিকল্পনা প্রণয়ন বিষয়টি সুক্ষ্ম পর্যবেক্ষণ এবং বিবেচনাপসুত হওয়া প্রয়োজন। আমরা চাকুরিপ্রার্থীদের চারস্তর বিশিষ্ট নিম্নলিখিত ক্যারিয়ার প্ল্যানিং পদ্ধতিটি বিবেচনা করতে বলবো।

(ক) আত্মপ্রকৃতি যাচাই

নিজের প্রকৃতি বিরুদ্ধে কোন পেশা ব্যক্তির জীবনে সর্বাঙ্গীন সফলতা আনতে পারে না। এ কারণে ক্যারিয়ার প্ল্যানিং পদ্ধতির এই স্তরে একজন চাকুরিপ্রার্থীকে মনে রাখতে হবে যে, প্রত্যাশিত চাকুরিটি যেন তার সহজাত পছন্দ বা আগ্রহ এবং আদর্শ, বিশ্বাস ও মূল্যবোধের পরিপন্থী না হয় েএবং ব্যক্তিগত বিশ্বাস ও আদর্শকে লালন করার অধিকার ক্ষুণ্ন না করে। এছাড়া এ পর্বে শিক্ষা এবং শারীরিক ও মানসিক দক্ষতাকে সামনে রেখে পেশা পছন্দ করা জরুরি। কারণ শিক্ষা জীবনে অর্জিত বিষয়ই যদি কর্মক্ষেত্রের বিষয় হয় তাহলে সেক্ষেত্রে অনেক সুবিধা হয়।

(খ) পেশা নির্বাচনের উপায়

সীমিত ধারণার উপর ভিত্তি করে ক্যারিয়ার হিসেবে কোন পেশাকে ক্যারিয়ার পরিকল্পনায় নেওয়া উচিত নয়। কাঙ্ক্ষিত পেশাটি ক্যারিয়ার পরিকল্পনায় স্থান দেওয়ার পূর্বে সে সম্পর্কে প্রয়োজনীয় পঠন-পাঠন পরীক্ষা খুবই জরুরি। পেশা সম্পর্কে ধারণা ও তথ্য সংগ্রহের জন্য যে বিষয়গুলোর সাহায্য নেওয়া যেতে পারে তা হলো-

সংশ্লিষ্ট পেশায় নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গের পরামর্শ।

পেশাদার ক্যারিয়ার কাউন্সিলরদের কাউন্সিলিং (পরামর্শ)

পেশার ক্ষেত্রসমূহে (অফিস, আদালত মিল, ফ্যাক্টরি ইত্যাদি) সরেজমিনে ভ্রমণ।

খণ্ডকালীন চাকুরি, internships, volunteer সার্ভিসের মাধ্যমে।

সংশ্লিষ্ট পেশা সম্পর্কে লিখিত বই এবং তথ্যবহুল সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে।

(গ) পেশা নির্দিষ্ট কারণ

এই ধাপে একজন প্রার্থী-

সম্ভাব্য পেশাকে নির্দিষ্ট করবে

এই পেশাকে মূল্যায়ন করবে

ব্যতিক্রম কিছু থাকলে সেগুলোকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখবে।

পেশা অর্জনের ক্ষেত্রে স্বল্পমেয়াদী এবং দীর্ঘমেয়াদী উভয় option ই নির্ধারণ করবে।

(ঘ) পেশা অর্জনের প্রয়োজনীয় উপকরণ

এ পর্বে একজন প্রার্থী প্রত্যাশিত চাকুরিটি পাবার জন্য প্রয়োজনীয় জ্ঞানগত এবং উপকরণগত উন্নতি করার চেষ্টা করবে। যেমন-

প্রয়োজনবোধে অতিরিক্ত শিক্ষা বা ট্রেনিং এর উৎসগুলো তদন্ত করবে।

চাকুরি খোঁজার কৌশল নির্ধারণ করবে।

Resume বা জীবনবৃত্তান্ত লিখবে।

চাকুরির সাক্ষাৎকারের জন্য প্রস্তুতি নেবে।

ভাল আবেদনপত্র লেখার অভিজ্ঞতা অর্জন করবে।

প্রয়োজনে কোচিং এর সাহায্য নেবে।


ক্যারিয়ার: স্তর বিন্যাস

একজন ব্যক্তির ক্যারিয়ার পাঁচটি স্তরে পরিবাহিত হয়।

১। স্বপ্নময় স্তর/সময়

শিক্ষা জীবনের শুরু থেকে কর্মজীবনে প্রবেশের আগ পর্যন্ত সময়ই স্বপ্নময় সময়। অধিকাংশ মানুষ জীবনের প্রথম পঁচিশ বছর অতিক্রম করার সঙ্গে সঙ্গে স্বপ্নময় সময় অতিক্রম করে। এসময় ক্যারিয়ার সম্পর্কিত নানা প্রত্যাশা বা স্বপ্ন একজন ব্যক্তির মনে জন্ম নেয়, যার অধিকাংশই অবাস্তব এবং অলীক। এইসব ক্যারিয়ার ভাবনা কয়েক বছরের মধ্যেই অপ্রাপ্তিতে রূপ নেয়। পরিণতিতে ব্যক্তি হাতশায় নিমজ্জিত হয়।

২। প্রতিষ্ঠার স্তর/সময়

ক্যারিয়ার প্ল্যানিং এ একজন ব্যক্তির শিক্ষা শেষে চাকুরি সন্ধান এবং প্রথম চাকুরি গ্রহণের সময়টা প্রতিষ্ঠার সময় হিসেবে বিবেচিত। বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে এ স্তরের মেয়াদ আনুমানিক ২৫ থেকে ৩৫ –এ দশ বছরের মধ্যেই সীমাবদ্ধ।

৩। মধ্যবর্তী স্তর/ সময়

ক্যরিয়ারের এ পর্যায়ে একজন ব্যক্তি তার কর্মতৎপরতায় ক্রমাগত উৎকর্ষ সাধন করে অথবা স্থিতি পায় অথবা কর্মতৎপরতায় ভাটা পড়তে শুরু করে। ক্যারিয়ারে এই সময়টার মেয়াদই সবচেয়ে দীর্ঘ। এদেশে ৩৫ থেকে ৫৫ পর্যন্ত সময়কে আমরা একজন ব্যক্তির ক্যারিয়ারের মধ্যবর্তী স্তর হিসেবে অভিহিত করতে পারি।

৪। স্থিতি স্তর/ সময়

ক্যারিয়ারের এই সময়টাকে একজন মানুষ তার পেশা সম্পর্কে নতুন কিছুই শেখে না, কিংবা শেখার আগ্রহও থাকেনা। এ পর্যায়ে ব্যক্তি তার কার্যসম্পাদন প্রক্রিয়ায় পূর্ববর্তী বছরগুলোর তুলনায় কম দক্ষতার পরিচয় দিতে শুরু করে। সাধারণত ৫৫ থেকে ক্যারিয়ারে স্থিতির স্তর শুরু হয়ে যায়।

C: পাঠাগার
8
Career Planning / প্রফেশনাল হয়ে উঠুন
« Last post by A.Wadud on July 02, 2017, 12:34:34 PM »
সবসময় শুনে এসেছি, প্রফেশনাল মানেই খারাপ লোক। নিজের স্বার্থ ছাড়া কিছু বোঝে না। আসলে আমরা প্রফেশনাল শব্দটার মানে ঠিকমতো জানি না বা বুঝি না। এই বিভ্রান্তিটা মধ্যবিত্ত সমাজে একটু বেশিই চালু রয়েছে। অথচ সারা দুনিয়ায় সত্যিকারের প্রফেশনাল-এর কদর বেশি।

 
প্রফেশনাল হওয়ার জন্য তেমন কোনো রুল বা ফর্মুলা নেই। তবে কতগুলো গুণ ও ব্যবহারের ঠিক ঠিক ব্যালান্স যদি নিজের মধ্যে তৈরি করা যায় তাহলেই সত্যিকারের প্রফেশনাল হয়ে ওঠা যায়। অবশ্য প্রফেশনাল হওয়ার সব স্কিল যে তৈরি করা যায় এমন নয়। শিক্ষা-দীক্ষা, সর্বোপরি, ব্যবহার- এসবের মধ্যে নিহিত থাকে প্রফেশনাল হওয়ার ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা। আর সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো- এসব গুণ বলেন, ব্যবহার বলেন, ভিতরের মানুষটার মধ্যেই থাকে, সেই ছেলেবেলা থেকেই। কেবল সেটাকে সচেতনভাবে চিনে নিতে হয়। আমরা তো দোষ-গুণ মিলিয়ে মানুষ, তাই সবার মধ্যে সব গুণ বজায় থাকবে এমনটা ভাবা অন্যায়। তবে জীবনের মূলনীতি ঠিক থাকলে, বাকি গুণগুলো আয়ত্ত করা কেবল সময় ও পরিশ্রমের ব্যাপার। আর নিজেও অন্যদের প্রতি সচেতন হওয়া প্রয়োজন।     

আমরা আসলে প্রফেশনাল মানে বুঝি, পেশাদারি জগতে ঢুকে পড়ার কতগুলো নির্দিষ্ট ব্যবহার। যেমন ১০-৫টা পর্যন্ত অফিস সময়ে সীমাবদ্ধ। হয়তো আগেকার দিনে এমন ব্যবহার করলে চলত। কিন্তু এখন সবকিছু বদলেছে। তাই নিজের মধ্যের মানুষটাকে একটু সচেতনভাবে উত্তরণের পথে নিয়ে যাওয়া জরুরি। প্রফেশনাল হওয়া মানে কিছু ব্যবহারের প্রতি অনুগত থাকা। সেটা ব্যক্তিগত বা পেশাদার জীবন হোক। যদি সেই কোয়ালিটিগুলো নিজের মধ্যে গেঁথে নেওয়া যায় তাহলে ব্যক্তিগত ও পেশাদার জীবনটা অনেক স্বচ্ছভাবে যাপন করা যায়। কতটা ইন্টেগ্রিটি, দায়িত্ববোধ, কাজের প্রতি শ্রদ্ধা, সেল্ফ অ্যাওয়ারনেস- এসব প্রশ্ন যাচাই করতে যাওয়া বোকামি। এই গুণগুলো নিজের মধ্যে সচেতনভাবে অনুশীলন করা জরুরি। একজন সত্যিকারের প্রফেশনাল হয়ে ওঠার জন্য যেমন নীতি, সততা দরকার, তেমনই দরকার জেদ, পরিশ্রম আর কাজটা করে যাওয়ার নিষ্ঠা এবং ধৈর্য। যদি নীতি, সততা, ইন্টেগ্রিটি- এসব গুণ সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা আপনার নিজের মধ্যে তৈরি হয় বাকিটা সহজেই আয়ত্ত করতে পারবেন। তবে কয়েকটা গুণের কথা বলতে পারি যেগুলো বৃহত্তর জীবনে আপনাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে। যেমন- নিজের সম্পর্কে ঠিক ধারণা। আপনি কতটা পারেন সে ব্যাপারে একবার নিজেকে যাচাই করে নিন, পথ চলতে সুবিধা হবে। কাজ সম্পর্কে সঠিক ধারণা থাকলে জীবনটা অনেক সহজ হয়ে যায়।

কিছু টিপস 

*নিজের সম্পর্কে দ্বিধা রাখবেন না।
*নিজের সম্পর্কে নিজের একটা অ্যানালিটিক্যাল মন তৈরি করুন। নিজেকে ফাঁকি দেওয়ার চেয়ে বড় অপরাধ কিছু হয় না।
*অন্যের কাছ থেকে সাহায্য নিন। এতে লজ্জার কিছু নেই।
*অন্যের সঙ্গে তুলনা করে মন খারাপ করা ঠিক নয়।
*ভবিষ্যৎ সম্পর্কে একটা বাস্তব ধারণা পোষণ করার চেষ্টা করুন।
*টাকাই সব নয়, এক্সিলেন্সের পেছনে দৌঁড়ান।
*সমালোচনায় ভেঙে না পড়ে তার থেকে শিক্ষা নেওয়া উচিত।
*যে কোনো কাজে নিজ থেকেই এগিয়ে যাওয়া ভালো। প্রোঅ্যাক্টিভ হওয়াটা জরুরি। নিজের দায়িত্ব নিজে নিন। পারলে অন্যকে সহযোগিতা করুন।


এটা নিশ্চয়ই এ টু জেড তালিকা নয়। এ ছাড়াও জীবনের অনেক দিক আছে, যেগুলো নিয়ে চলতে পারলে জীবনটা সম্পূর্ণ হয়। পাশাপাশি বাস্তব জীবনের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে হয়ে উঠুন প্রফেশনাল

C: বাংলাদেশ প্রতিদিন
9
চাকরির ইন্টারভিউয়ে ভালো করার ১০টি  কার্যকর কৌশল

চাকরির ইন্টারভিউ এমন একটি জায়গা যেখানে প্রচণ্ড আত্মবিশ্বাসী ও চৌকস ব্যক্তিরাও মানসিকভাবে দুর্বল হয়ে যান। যতই স্মার্ট, মেধাবী ও যোগ্য চাকরি প্রত্যাশী হোন আপনাকে ইন্টারভিউয়ের প্রস্তুতি নিতেই হবে। ইন্টারভিউয়ে আপনার দক্ষতা উপস্থাপন করতে হবে। এবং আপনি প্রথম সুযোগে দক্ষতার ছাপ রাখার যে সুযোগ পাবেন দ্বিতীয়বার সে সুযোগের সম্ভাবনা থাকবে না। তাই ইন্টারভিউয়ে নিজের দক্ষতা প্রদর্শন করার জন্য ১০ টি কৌশল আয়ত্ত করে নিন। যা আপনাকে সাফল্যের পথে অনেকদূর এগিয়ে নিয়ে যাবে।

(১) শরীরের ভাষায় যোগাযোগ করুন
সব বলে দেয়া যায় না। নিজেকে এমনভাবে উপস্থাপন করুন যেন তা আপনার আত্মবিশ্বাসকে দারুণভাবে ব্যাখ্যা করে। সোজা হয়ে দাঁড়ান, আই কন্ট্যাক্ট করুন এরপর অন্তঃসম্পর্ক তৈরি করে দৃঢ়ভাবে ভাবে হ্যান্ডশেক করুন। আপনার শারীরিক উপস্থাপনায় ইন্টারভিউ পর্বের দারুণ সূচনা হতে পারে অথবা দ্রুতই শেষ হয়ে যেতে পারে।

(২) পোশাক নিয়ে সচেতন হোন
আপনার ইচ্ছা মতন পোশাক-পরিচ্ছদ এখন ইন্টারভিউতে অনুমোদিত নয়। আপনি কোন ধরনের পোশাক পরিধান করে ইন্টারভিউয়ের মুখোমুখি হবেন এটা জানা অতি আবশ্যক কেননা এই ধাপটাই আপনাকে একজন ভালো প্রার্থী হিসেবে পরিচিতি দেবে। স্যুট-টাই পরে যেতে পারেন। কোনো পোশাক কোম্পানির বিধিবহির্ভূত হলে আপনি বিবেচিত নাও হতে পারেন। যদি সম্ভব হয়, ইন্টারভিউয়ের আগেই সেই কোম্পানির 'ড্রেসকোড' জেনে নিন।

(৩) মনোযোগ দিয়ে শুনুন
ইন্টারভিউয়ের শুরু থেকেই আপনার মনোযোগকে কেন্দ্রীভূত রাখতে হবে। কোনোভাবে মনোযোগ বিচ্ছিন্ন হতে দেবেন না। কারন আপনার ইন্টারভিউ যিনি নেবেন তিনি আপনাকে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ ইশারায় বা ভাষায় অনেক কিছুই বলবেন। যদি আপনার মনোযোগ বিচ্ছিন্ন থাকে, কান খাড়া না থাকে তাহলে আপনি বড় ধরনের সুযোগ হাতছাড়া করে ফেলতে পারেন। আপনার সামনের ইন্টারভিউ গ্রহণকারীকে ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করে নিন। তিনি কী বলছেন সেটা শুনুন। এবার তার প্রত্যাশা অনুযায়ী আপনার নিজস্ব ভঙ্গিমায় উত্তর দেয়ার কাজ চালিয়ে যান। মনোযোগ দিয়ে শোনাটাও একটা গুরুত্ত্বপূর্ন দক্ষতার ব্যাপার।

(৪) কথা সংক্ষেপ করুন
অনেক সময় যারা ইন্টারভিউ নেয়, তারা তাদের কথার মাঝে কিছু ভুল মিশিয়ে দেন। এক্ষেত্রে আপনার উচিত হবে তার ভুল কথাটা ধরে সংশোধন করা। যতটুকু প্রয়োজন ততটুকুই বলবেন। ভালো প্রস্তুতি না থাকলে আপনি হোঁচট খাবেন। আপনার জানা বিষয়গুলো মাথায় ঝালিয়ে নিন। ইন্টারভিউয়ের জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে সেই কর্মক্ষেত্রের পরিধি দেখে, আপনার দক্ষতা মানিয়ে সর্বোপরি যা চায় ঐ কোম্পানি সেই যোগ্যতা ও তথ্য আপনাকে আত্মস্থ করতে হবে।

(৫) পরিচিত হতে যাবেন না
ইন্টারভিউ হচ্ছে পেশাদারিত্ব ও ব্যাবসায়িক কথা বলার জায়গা। এখানে নতুন বন্ধু তৈরি করার সুযোগ নেই। এখানে আপনার পরিচিতির সীমানা বৃদ্ধি করার চিন্তা না করলেই ভালো হয়। ইন্টারভিউ যিনি নেবেন তার সাথে ব্যাক্তিগত যোগাযোগ ও কথা বলার দরকার নেই। প্রয়োজনীয় প্রসঙ্গে কথা বলার প্রয়োজন হলে মানসিক শক্তি ও উৎসাহের প্রয়োজন হয়। আপনি প্রশ্ন করুন, তবে আপনার অবস্থান ও আপনি যে চাকরি খুঁজছেন এ কথা ঘুণাক্ষরে ভুলে যাবেন না।

(৬) মার্জিত ভাষা ব্যবহার করুন
ইন্টারভিউ বোর্ডে আপনাকে পেশাদার ও মার্জিত ভাষা ব্যবহার করতে হবে। অপয়োজনীয় কথা এড়িয়ে চলুন। অশ্লীল ভাষা ও বয়সের রেফারেন্স, জাতি, ধর্ম, খেলা, রাজনীতি অথবা যৌনতার বিষয়ে সাবধানে কথা বলুন। এসব বিষয়ের আলাপ খুব দ্রুত আপনাকে দরজার বাইরে পাঠিয়ে দেবে।

(৭) নিজেকে জাহির করার চেষ্টা করবেন না
আচরণ ও মনোভাব ইন্টারভিউয়ের সফলতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এখানে আত্মবিশ্বাস, পেশাদারিত্ত্ব ও বিনম্রতার সুন্দর ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে। আপনি যদি প্রয়োজনের তুলনায় অনেক বেশি ভালো করার যোগ্যতাও রাখেন তারপরেও সেটা প্রকাশ করা যাবে না। অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস ভালো ফল বয়ে আনে না। এটাকে দমিয়ে রাখুন।

(৮) যত্ন নিয়ে উত্তর দিন
প্রশ্নকর্তা আপনাকে এমন কিছু প্রশ্ন করবেন যেটার সাথে আপনার ব্যাকগ্রাউন্ড সম্পৃক্ত থাকতে পারে। আপনাকে এক্ষেত্রে চাতুর্যের সাথে আপনার অতীত ইতিহাস স্পর্শ করে উত্তর দিতে হবে। উত্তর অবশ্যই যত্ন নিয়ে বলতে হবে। যদি আপনি যথার্থ উত্তর না দিতে পারেন তাহলে শুধু আপনারই উত্তরই ভুল হবে না, আপনার দক্ষতা ও যোগ্যতা প্রদর্শনের সুযোগটাও হাতছাড়া হয়ে যাবে।

(৯) প্রশ্ন করুন
ইন্টারভিউ বোর্ডে প্রশ্নকর্তা শেষে যখন প্রার্থীকে বলেন 'আপনার কোন প্রশ্ন আছে?' এক্ষেত্রে অধিকাংশ চাকরিপ্রার্থী বলেন 'না।' এটা অনেক বড় একটা ভুল। ইন্টারভিউয়ে  ভালো করতে হলে প্রশ্ন করার মানসিকতা রাখতে হবে। আপনার যে ঐ প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে আগ্রহ আছে আপনার ক্ষুদ্র প্রশ্নের মধ্যেই তা ফুটে উঠবে। শুধু একটা প্রশ্নের মাধ্যমেই আপনার কাঙিক্ষত চাকরিটি পেয়ে যেতে পারেন। তবে সবচেয়ে উৎকৃষ্ট প্রশ্নটি আসবে তখনি যখন ইন্টারভিউয়ের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগের সাথে প্রশ্নকর্তার কথাগুলো উপলব্ধি করবেন আপনি।

(১০) ব্যাকুলতা দেখাবেন না
যখন আপনি ইন্টারভিউ বোর্ডে প্রশ্নকর্তাকে বারবার অনুরোধ করবেন 'আমাকে নিন, আমি পারবো' তাহলে এই ব্যাকুলতাই আপনাকে আত্মবিশ্বাসহীন করে দেবে। মনে রাখবেন অনুরোধ আর তৈলমর্দনে সবখানে কাজ হয় না। ঠাণ্ডা, শান্ত, আত্মবিশ্বাসী মনোভাবটা ইন্টারভিউ চলাকালে ধরে রাখুন। 'আপনি এই চাকরিটা পাবেন' এই বিশ্বাসটা ইন্টারভিউ বোর্ডের প্রশ্নকর্তাদের মনে স্থাপন করতে পারলেই আপনার চাকরি হবে।


C: কালের কণ্ঠ
10
The Ultimate DIY Guide to Beautiful Product Photography

If there’s one thing that’s true when it comes to e commerce, it's that the perceived value of your products and the trustworthiness of your business is often judged by the quality of your web design. And a big part of having an attractive website these days also means having high-quality, beautiful product photography.

What You’re Going to Need

Gear is at the heart of photography and can be really exciting, but typically it’s the aspect that most people become confused about.

There’s no necessity to spend a large portion of your budget on high-tech equipment, so keep an open mind and try not to overspend on gadgets that do the same job lighting your product as a $5 piece of card can do.  You can probably do this window light setup for $20 or less if you already own a camera.

You’re only going to need a few things for this setup:

1. Camera



You don’t need a crazy camera system. While shooting images with a Nikon D800 ($2796) sporting a 105mm f1.4 lens ($740) is awesome, it’s also totally unnecessary.

Still, if you’re feeling excited, and have the budget to stretch to a new camera system for this project, I suggest reading a post I wrote on quora which offers tips to help you pick out a good camera for product photography. If all you have is your smartphone, that's ok too; check out this helpful guide to smartphone product photography.

2. Tripod



Not to get too technical, but you’re going to set your camera to a very small aperture so that you can have the most depth of field your camera is capable of. 

The width of the depth of field defines the area of sharp focus, and to get to that you need the largest f/stop number your camera can obtain. Shutter speed and f/stop are related, and since a larger f/stop number like f/8 lets in less light, you’ll need to counter than by using a slower shutter speed to allow more light through. 

3. White Background



There are lots of options for a white background and if you’re going to be shooting a lot, you may want to go to your local photography store and get a small white sweep.

If you’re not in an area with a good photography store, you can always head over to your frame shop/art store and get a 32x40 sheet of their thinnest white Mat Board, which is what we’re using in this example.
4. White Bounce Cards Made of Foamcore

While you’re at the art store/frame shop, ask them if they have any extra scraps of white foamcore you can buy.  You only need a piece roughly the height of your product, and about 3x the width. Typically, a letter size will work.  We like to bend ours in half, like in the above example, so that it will stand up on its own.  Its purpose is to bounce light back onto the product. 

5. Table

A standard folding table works best, and a width that’s between 24 and 27 inch wide is ideal.

6. Tape

Depending on the table you end up with, you can use tape or clamps to secure down your board so that it sweeps properly.

7. The Right Room

A room with windows next to a wall is perfect, and the bigger the window, the more light you’ll get in.

https://www.shopify.com/blog/12206313-the-ultimate-diy-guide-to-beautiful-product-photography
Pages: [1] 2 3 ... 10